গোলাপ কুঁড়ির রূপকথা দিন

লিখেছেন - সিনি মনি | লেখাটি 1621 বার দেখা হয়েছে

গোলাপকুঁড়ির মন আজ ভীষণ খারাপ । সবুজ রঙ্গা সেই ছোট্ট দুষ্টু প্রজাপতিটা আজও আসেনি তার কাছে । গোলাপকুঁড়ি তার হালকা সবুজ ফ্রকের মাঝে লাল টুকটুকে মুখখানি বের করে কেবলই এদিকওদিক তাকাচ্ছে । ঐ তো রঙ্গিন প্রজাপতিরা উড়ে উড়ে আসছে , ঐ তো বাদামিরঙ্গা মস্ত প্রজাপতিরাজ হেলেদুলে আসছেন , কিন্তু ঐ দুষ্টু টা আসছেনা কেন ? নাহয় ভুল করে একটু বকেই দিয়েছিল তাকে গোলাপকুঁড়ি , তাই বলে বুঝি ভুলে যেতে হয় এমন করে ? নাহ প্রজাপতিটাকে সে যতটা না দুষ্টু ভেবেছিল , ও দেখছি তার চাইতেও বেশি দুষ্টু !

গোলাপকুঁড়ির বাবা , গোলাপরাজ মেয়ের মাথায় হাত বুলিয়ে বললেন , '' কি হয়েছে গো , আমার মিষ্টি কুঁড়িটার অমন রাঙ্গা মুখখানি আজ এত মলিন কেন ? '' গোলাপকুঁড়ি ঠোঁট ফুলিয়ে কাঁদতে শুরু করে । ভোরের শিশির তার কান্না হয়ে ঝরে পড়ে সবুজ দূর্বাঘাসে । দূর্বারাজ হাহাকার করে উঠলেন , '' কি হয়েছে গোলাপরাজ , আমাদের রাজকন্যার চোখে জল ? '' কিন্তু কারো কোন কথারই জবাব দিল না গোলাপকুঁড়ি । সবাই কে হতাশ করে মুখ ফেরাল অন্য দিকে ।

গোলাপরানী কিন্তু গোলাপরাজের মত প্রশ্রয় দিলেন না মোটেও , বরং রেগে গেলেন ভীষণ । চোখ গরম করে তাকালেন মেয়ের দিকে , '' অতটুকুনি মেয়ের রাগ দেখ ! তুমি ভীষণ দুষ্টু হয়েছ । কি হয়েছেটা কি ? ঠিকমত খাচ্ছনা , ঘুমাচ্ছ না , হাসছনা , খুব বাড়াবাড়ি হয়ে যাচ্ছে কিন্তু ......'' গোলাপরাজ থামালেন রানীকে , বললেন , '' আহা রানী , বকছ কেন আমার রাজকন্যা কে ? দেখছই তো মেয়েটার আমার কি মন খারাপটাই না হয়েছে ...'' গোলাপরানী মুখ বাকিয়ে বললেন , '' ঠিক আছে , আমি আর কিচ্ছু বলবনা , তুমি তোমার মেয়েকে মাথায় তুলে নাচো ''

গোলাপরাজ হাসলেন । তিনি ভীষণ ভালবাসেন তার গোলাপকুঁড়িকে । চুপিচুপি তিনি ডাকলেন দখিন হাওয়া কে । বললেন , '' দখিন হাওয়া দখিন হাওয়া তোমার কাছে ছোট্ট চাওয়া দেখনাকো মেয়েটি আমার মুখটি কেন করেছে ভার ''

দখিন হাওয়া ছুটে গেল গোলাপকুঁড়ির কাছে । গোলাপকুঁড়ির সাথে তার ভীষণ বন্ধুতা । সে তার মুখটি তুলে তাকিয়ে দেখল , রাঙ্গা মুখখানি শুকিয়ে এতটুক । '' সে কি গোলাপকুঁড়ি , তোমার মন খারাপ ?" '' হ্যা গো দখিন হাওয়া ।'' '' কেন ? আমায় বলবে ? যদি পারি তোমার মন ভাল করতে ? '' '' পারবেনা , কেউ কিচ্ছুটি করতে পারবেনা , আমি বেশ জানি '' দখিন হাওয়া গোলাপকুঁড়ির চারদিকে একপাক ঘুরে বলল , '' তাই ? কি সেই কাজ যা দখিন হাওয়া তার সখির জন্যে করতে পারবেনা ?'' গোলাপকুঁড়ি ফুপিয়ে ফুপিয়ে বলল , '' ছাই পারবে । '' '' তুমি বলেই দেখ না ! '' ''তুমি পারবেনা , তুমি পারবে সেই দুষ্টুটার কান ধরে টেনে আনতে ? '' এটুক বলেই গোলাপকুঁড়ি জিভ কাটল । সর্বনাশ ! দখিন হাওয়া যদি টের পেয়ে যায় ? বাবাকে বলে দেয় সবকিছু ? দখিন হাওয়া ও চালাক ভীষণ । সে আগে থেকেই কিছুটা আন্দাজ করেছিল , সে নিচু স্বরে বলল , '' তুমি কার কথা বলছ গোলাপকুঁড়ি ? সেই দুষ্টু ঝগড়াটে সবুজ রঙ্গা প্রজাপতিটা বুঝি ? '' গোলাপকুঁড়ি লাজে রাঙ্গা হয়ে গেল । দখিন হাওয়ার কোন কথারই আর জবাব দিলনা সে । কিন্তু দখিন হাওয়া যা বুঝার তা সহজেই বুঝে নিল ।

সেদিন ও এমন ঝলমলে রোদ উঠেছিল আকাশে । পাখিদের মাঝে যেন শুরু হয়ে গিয়েছিল উৎসব । গোলাপকুঁড়ির মন সেদিন অনেক ভাল ছিল । দখিন হাওয়ার সাথে ঢেউ ঢেউ খেলছিল সে । বরাবরের মতই দুষ্টু প্রজাপতিটা দূর থেকে তাকে ভেংচি কাটছিল । গোলাপকুঁড়ি বোঝেনা , এই দুষ্টু ছেলেটা তার সাথে দুষ্টুমি করে কি এত মজা পায় , সে তো দুষ্টু প্রজাপতিটাকে পাত্তাই দেয়না ।দুষ্টু প্রজাপতিটা প্রজাপতিরাজের ছোট পুত্র , প্রজাপতিরানীর আহলাদ পেয়ে পেয়ে সে মাত্রাতিরিক্ত দুষ্টু হয়ে গেছে । তবে সবাই বলে কিনা , প্রজাপতিরাজপুত্র দুষ্টু হলেও ভীষণ দয়াময় । গোলাপকুঁড়ির যদিও সেটা মনে হয়না , তার কাছে মনে হয় , দুষ্টু প্রজাপতিটার মাথা ভরা কেবল দুষ্টু বুদ্ধি । হঠাত গোলাপকুঁড়ি লক্ষ করল প্রজাপতি তার দিকে এগিয়ে আসছে , সে এগিয়ে এসে বলল , '' গোলাপকুঁড়ি গোলাপকুঁড়ি আমায় খেলতে নেবে ? '' '' কেন তোমার বন্ধুদের সাথে খেল '' '' আজ যে আমার তোমার সাথে খেলতে ইচ্ছে হচ্ছে '' গোলাপকুঁড়ি মুখ বাকিয়ে বলল , '' তুমি আমায় ভেংচি কাটো কেন ? তোমায় খেলতে নেবনা '' প্রজাপতিরাজপুত্রের মুখে মেঘ ঘনিয়ে আসতে দেখে দখিন হাওয়া বলল , '' আহা সখি তুমি প্রজাপতিরাজপুত্রের সাথেই খেল , আমার যে একটু তাড়া আছে , দক্ষিনে যেতে হবে , মেঘরাজ বলে দিয়েছেন '' গোলাপকুঁড়ি রাজি হল । প্রজাপতির সাথে '' ছোয়াছুয়ি'' খেলল বেশ মজা করে । তবে দুষ্টু প্রজাপতিটাই যে জিতে গেল খেলায় , গোলাপকুঁড়ি তো আর তার মত ছোটাছুটি করতে পারেনা । খেলা শেষে তাই গোলাপকুঁড়ির মুখ ভার । প্রজাপতি তাকে বলল , '' রাগলে তোমায় ভীষণ মিষ্টি লাগে , গোলাপকুঁড়ি '' '' আমি রাগতে চাইনি ,তুমি ভীষণ দুষ্টু , তাই রাগিয়েছ আমায় '' প্রজাপতি দুঃখ দুঃখ মুখ করে বলল , '' আমি তো তোমায় রাগাতে চাইনি '' '' তবে ? '' '' গোলাপ কুঁড়ি তোমায় ভালবাসতে দেবে আমায় ? তোমায় যত্ন করে সাজিয়ে রাখবো '' গোলাপ কুঁড়ি রাঙ্গা মুখে চেঁচিয়ে বলেছিল , '' দুষ্টু প্রজাপতি তুমি এক্ষুনি চলে যাও , এক্ষুনি '' '' আমায় ফিরিয়ে দিলে ?'' '' হ্যা দিলাম ''

দুষ্টু প্রজাপতি ব্যথিত মন নিয়ে উড়ে গিয়েছিল । তারপর থেকে আর আসেনি বাগানে খেলতে । এভাবে কেটে যায় বেশ কিছু দিন । গোলাপ কুঁড়ি বোঝেনি সেই দুষ্টু প্রজাপতির মিষ্টি কথাগুলি তাকে এভাবে বদলে দেবে । সে অপেক্ষায় থাকে । কিন্তু দুষ্টু প্রজাপতি আর আসেনা ।

'' দখিন হাওয়া সে কি আর ফিরবেনা ? '' '' জানিনা রাজকন্যা , তার যে কোন খোজ ই নেই , হাওয়ায় মিলিয়ে গিয়েছে যেন '' '' সব আমার দোষ , আমি তাকে দূর করে দিয়েছিলাম , আর আজ এত খুজেও তার দেখা পাচ্ছিনা ।'' দখিন হাওয়া মৃদু হেসে বলল , '' সে ঠিক ফিরবে দেখে নিও '' '' কিন্তু ...... কাল সকালেই যে আমি প্রস্ফুটিত হব , সে যদি ফিরে আসে , আমায় তো চিনতে পারবেনা, দখিন হাওয়া '' '' সে তোমায় ঠিক চিনে নেবে '' দখিনা হাওয়া বইতে লাগল । গোলাপ কন্যার মন খারাপ ।

পরদিন ভোরে গোলাপ কুঁড়ি অসাধারণ সুন্দর এক গোলাপে পরিনত হল । এমন সুন্দর গোলাপ কেউ আগে কক্ষনো দেখেনি । যেমন তার রঙ তেমনি সুবাস । সকলে তাকে অভিবাদন জানিয়ে গেল । গোলাপ দখিন হাওয়াকে ডেকে বলল , '' আমার একটি কাজ করে দেবে ? '' '' কি কাজ বল ?'' '' আমি সুবাস দিয়ে প্রজাপতিকে ডাকব , তুমি সেই সুবাস ছড়িয়ে দাও , আমার বিশ্বাস সে ফিরে আসবে '' দখিন হাওয়া বইতে লাগল । সাথে চলতে লাগল গোলপের প্রতীক্ষা ।

বিকেল যখন পড়ে এল তখন দখিন হাওয়া ক্লান্ত হয়ে গেল । শিশির ভেজা মন নিয়ে গোলাপ তখন ও প্রতীক্ষায় । কিন্তু যার জন্যে এত অপেক্ষা , সে কোথায় ? গোলাপ কেবল ভাবে আর ভাবে , এত যাকে ডাকছে , সে কি একবার ও শুনছে না সেই ডাক ? প্রজাপতির উপর ভীষণ অভিমানে কাঁদতে লাগল গোলাপ । যে কিনা এক আকাশ আবেগ নিয়ে তাকে ভালবাসতে চেয়েছিল , কয়দিনের ব্যবধানে সেই আবেগ বুঝি এইভাবে হারিয়ে যায় ? গোলাপ নিজেকে বুঝ দেয় , প্রজাপতি তাকে ভালবাসেনি একদমই , সবই ছিল দুষ্টু প্রজাপতির দুষ্টুমি ।

দখিন হাওয়া বলে , '' গোলাপ আমি যে ভীষণ ক্লান্ত , প্রজাপতি আসছেনা কেন ?'' গোলাপ ক্লান্ত গলায় বলে , '' সখি তুমি বাড়ি যাও । তার যদি আসবার হত তবে সে চলে আসত , সে আর আসবেনা । তুমি বাড়ি যাও ।'' দখিন হাওয়া বাড়ি গেল ।

গোলাপ কাঁদছিল একা একা । হঠাত শুনল কে যেন ডাকছে তাকে , '' তুমি আর কেদনা গোলাপ , দেখ আমি ফিরে এসেছি '' গোলাপ ফিরে তাকিয়ে দেখল , সবুজ রঙ্গা ঝকঝকে চেহারার তরুন একটি প্রজাপতি , তার সেই দুষ্টু প্রজাপতি । গোলাপ কান্না কান্না গলায় বলল , '' হারিয়েছিলে কেন ?'' '' আমি ভাবিনি তুমি আমায় চাইবে কখনো '' '' আমি অপেক্ষায় ছিলাম , তুমি বোঝনি ? আমি ভেবেছিলাম তুমি বুঝি আর আমায় চিনবেনা ''

প্রজাপতি গভীর মায়ায় গোলাপকে জড়িয়ে বলল , '' আমার গোলাপকুঁড়ির সুবাস আমি বুঝি ভুলে যেতে পারি ?''

জানালার পাশে দাঁড়িয়ে গোলাপ আর প্রজাপতিকে গভীরভাবে দেখছিল কোন এক মানুষ প্রজাপতির অপেক্ষায় থাকা ভেনাসের রাজকুমারী সিকিম । তার দুই চোখ জলে ভিজে উঠছে । সে জানেনা , এই অপরুপা গোলাপটির মত তার জীবনেও এমন কোন বিকেল আসবে কিনা । সে জানেনা, প্রজাপতির মতন রাজকুমার রিওন ও তার কাছে ফিরে আসবে কিনা ।

পরিশিষ্ট ঃ

রুপকথার গোলাপেরা একদিনে ঝরে যায়না জেগে থাকে বহুদিন রুপকথার প্রজাপতিরা দূরে হারিয়ে যায়না ফিরে আসে একদিন তাই বাস্তবের দুর্ভাগা গোলাপদের জন্য অতিকল্পনাবিলাসী মনের এক অসম্ভব কল্পনা '' গোলাপ কুঁড়ির রূপকথা দিন ''

------------------------------

Share