লজ্জা শরমের মাথা খেয়ে নিউমার্কেট মোড়ে দাড়িয়ে আছি

লিখেছেন - শাহরিয়াজ মুত্তাকিন | লেখাটি 880 বার দেখা হয়েছে

লজ্জা শরমের মাথা খেয়ে নিউমার্কেট মোড়ে দাড়িয়ে আছি। ভিড়ভাট্টা ঠেলেটুলে টেবিলটার পাশে গেলাম।

সুহি বিরক্ত হচ্ছে।এগুলো ক্যানো দেখছ?

--সুন্দর লাগছে তাই দেখছি।

কিনবে যখন ভালো থেকে কেনো। রোদে দাঁড়িয়ে থাকতেও ভালো লাগছে না।

-- আমি রোদে খাওয়া মানিব্যাগ কিনব। এসির বাতাস খাওয়া মানিব্যাগগুলোর অনেক দাম।

দামি মানিব্যাগে ক্ষতি কি?টাকা নেই?

--আছে।সবসময় থাকে না। পাঁচশ টাকার মানিব্যাগে মুক্তি পেতে ছটফট করা একপঞ্চাশ টাকা মুখ গোমড়া করে বসে থাকবে, এটা কি ভালো?

ঝেড়ে কাশুন মিস্টার মধ্যবিত্ত।

--একশ টাকার মানিব্যাগে একশো টাকাই থাকবে ব্যাপারটা সুন্দর। পুরোটাই মধ্যবিত্ত । নো শো-অফ।

চলো তোমাকে একটা মানিব্যাগ কিনে দিই । আমি নিজে পছন্দ করে কিনে দেব। এখন থেকে ওয়ার্মআপ করো। একসময় তো তোমার মানিব্যাগে দামের অনেক গুণ বেশি টাকা থাকবে।

--তুমি ক্যানো গিফট করবা?

গিফট করব তো বলিনি । তোমার পুরনো মানিব্যাগটা আমাকে দিয়ে দিবে বিনিময়ে আমি তোমাকে নতুন একটা মানিব্যাগ কিনে দিব।

এ নিয়ে আমার তিনটা পুরনো মানিব্যাগ সুহি নিয়ে জমিয়ে রেখেছে । মানিব্যাগগুলো সে কি করে আমি জানি না । সে যেভাবে আমার বুকের ভেতর ঘাপটি মেরে বসে থাকে মানিব্যাগটাও তেমন করে তার ভ্যানিটি ব্যাগে শুধুশুধু বসে থাকে মনে হয়। ভ্যানিটিব্যাগটা তখন কি স্বপ্ন বুনে আমার খুব জানতে ইচ্ছে করে।

আমার একটা দামি মানিব্যাগ আছে। সেই দামি মানিব্যাগে তার চেয়েও দামি একটা টিস্যু আছে। টিস্যুতে লেগে আছে কাজল আর চোখের জল। এক দুপুরে সে কেঁদেকেঁটে কাজল লেপ্টে ফেলেছিল। চোখের পানি চোখে থাকতেই কাজলের কাছাকাছি গিয়ে সাধারণ টিস্যু পেপারটি এক ফোঁটা শিশিরবিন্দু শুষে নিয়েছিল।চোখের জল শুকিয়ে গেছে,কাজলের দাগ রয়ে গেছে।

#moneybagartissuergolpo
#শাহরিয়াজমুত্তাকিন

Share