শিরোনামহীন

লিখেছেন - আফরিনা হোসেন রিমু | লেখাটি 828 বার দেখা হয়েছে

সবসময় তো গল্পই লিখি,সব কল্পনার। সত্যি তাতে অনেক কম থাকে। এর ওর কাছ থেকে ধারটার নিয়ে, মাঝে মাঝে তাতে মালমসলা ঢেলে অদ্ভুত একেকটা জিনিস তৈরি হয়, দেখে মাঝে মাঝে নিজেরই খুব হাসি পায়। এমন আজগুবি ঘটনা কারো জীবনে ঘটে নাকি কখনো? 

 

এমনটাই ভাবতাম হয়তবা, এমনটা চিন্তা করতে করতে জীবনটা কেটে যেত, পাতার পর পাতা ভালবাসা নিয়ে লিখে যেতাম, ভালবাসার স্পর্শ ছাড়াই; যদি তুই না আসতি জীবনে। এমন সব কাহিনি আমার জীবনেও ঘটতে পারে, কখনো ভাবিনি। আসলেও না। অদ্ভুত সে গল্প, আমার বহুত কষ্টে চিন্তা করে বানানো গল্পগুলোকে প্রবল প্রতাপে হারিয়ে দেয়। এত সুন্দর আর এত শুদ্ধ সেই অনুভুতি, হারিয়ে যাই মাঝে মাঝে।

 

কত দিনেরই বা বন্ধুত্ব আমাদের? মোটে কয়েকদিনের। কিন্তু এই কয়েকদিনের মধ্যেই তুই আমার পুরোটা দখল করে বসে আছিস, কেমন করে এমনটা করলি বুঝলাম না। প্রেম ব্যাপারটা আসলে গল্প উপন্যাসেই ভাল লাগে, ওখানে একজন আরেকজনের জন্য জীবন উজার করে দিতে পারে, জীবনের চিন্তার সেখানে মূল্য কম। কিন্তু আমাদের জীবনটাতো আর তা নয়, এখানে অনেক কিন্তু রয়ে যায়, অনেক যদি চলে আসে। এত কিন্তু যদি আর অথবার ব্র্যাকেট ডিঙ্গিয়ে প্রেম করাটায় আসলেও বিশ্বাস করতাম না। এত সময় নেই বাবা! এমনিতে অনেক কাজ, ওগুলো করেই আর নিজের জন্য সময় পাইনা। 

 

কিন্তু ছেলে, তুই কেমন করে ঢুকে গেলি এই ব্র্যাকেটের ভিতরে? আমি তো বেশ ভাল বেড়া দিয়ে রেখেছিলাম, কত জন আসাযাওয়া করল, কিন্তু সুবিধা করতে পারলনা। আমি পাথরের মানুষ, আমাকে গলানো এতটা সহজ না। কিন্তু তোর সামনে কেন মোমের পুতুল হয়ে গেলাম, বুঝলাম না। মনে হল, আমি ভেসে গেলাম এক দমকা হাওয়ায়, আসলে আমাকে ভাসিয়ে নিয়ে গেলি, সবকিছু সহ। 

 

বন্ধুত্বের 'ডেফিনিশন' আমি ঠিক মত জানিনা। খালি জানি, বন্ধু হবে এমন, যাকে ডাকলেই সে কাছে চলে আসবে, সব দুঃখ নিজের করে নিবে। এত এত মানুষের ভিড়ে থেকেও আমি কখনো তেমন বন্ধুতা পাইনি। কখনো মনে হয়নি, কাউকে ডাকলেই তাকে পেয়ে যাব , আমার দুঃখটা নিয়ে নিতে । খুব একা মনে হত মাঝে মাঝে নিজেকে, আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকতাম , মনে হয় আল্লাহ কে বলতাম , এমন কাউকে দাও, যে শুধু আমার হবে, আমার ভালবাসায় যাকে আমি আপন করে রাখব সারাটা জীবন।

 

তুই আসার আগে ভাবতাম, এমন মানুষ থাকা সম্ভব না, কোনোমতেই না। একসময় হতাশ হয়ে গিয়েছিলাম, শিওর হয়ে গিয়েছিলাম, আমার সাথে এমনটা হওয়া সম্ভব না। সবাই সবকিছু পায়না, মেনে নিয়েছিলাম। আমি আসলে ওরকম ঠুনকো ভালবাসায় বিশ্বাস ও করতে পারতাম না, একদিনে থাকবে,দুইদিনের দিন গায়েব। মনে হতো না, কেন একটা মানুষ সারাক্ষণ আমাকে নিয়ে চিন্তা করবে, কেন একটা একটা মুহূর্ত আমাকে মনে করাবে, আমার জন্যও কেউ আছে।

 

তুই আমার জন্য একটা গিফট, আমার জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান। তুই ও তাই বলিস আমাকে নিয়ে। আমার ভাল লাগে ভীষণ। আমি জানি আমিও তোর জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মানুষ, আমার জন্য তুই হাসতে হাসতে জান দিয়ে দিতে পারিস। এতটা ভালবাসা কি আমি আগলিয়ে রাখতে পারব! মাঝে মাঝে ভয় হয় অনেক।

 

জেনে রাখিস, খুব একটা অদ্ভুত অনুভুতি হয় তোর জন্য,সবসময় মনে হয় তুই আমার আশেপাশেই আছিস, আমার সাথে আছিস, আমার হাতটা ধরে।শুধুই আমাকে সাহস দেয়ার জন্য, আমাকে হাসিতে ভরিয়ে রাখার জন্য। আমার সবসময়ের বন্ধু হয়ে আছিস, কিন্তু আজব হল তুই এটা নিজেও জানিস না । কি অদ্ভুত ভালবাসা যে জমে থাকে তোর জন্য, নিজেও বুঝিনা।  

 

এত দূরে থাকিস, কখনো দেখিস না, আমার চোখ ভিজে আসে তোর জন্য। তোকে না দেখতে পাওয়ার কষ্ট আমাকে কাঁদায়, কিন্তু আমি শক্ত থাকি। তোকে তো অনেক দূর যেতে হবে, সেখানে আমি তোর বাঁধা হয়ে দাঁড়াব না কখনো। কিছু না হলেও, তোকে আমার জন্য সবকিছু জয় করতে হবে, সব পারতে হবে, সব।

তোর সাথে আছি.................. সবসময়...............সবখানে....

........ তোর সবচেয়ে আপন মানুষটা হয়ে। 

 

Share