নেফ্রোদিতির রূপকথা

লিখেছেন - নূহা চৌধূরী | লেখাটি 1199 বার দেখা হয়েছে

অনেক হয়েছে,আর না । আজ আমি ওকে বলবোই । রূপকের বারান্দায় দাঁড়িয়ে আপন মনেই কথা গুলো বলল নেফ্রোদিতি ।ঐ তো ... ঐ তো কি রূপক আসছে । তো দিতি তৈরী হয়ে যাও !

**

মা ! মা ! আমার চশমাটা কোথায় ? খুঁজে পাচ্ছিনা তো ।

আমার হাড় জ্বালিয়ে ছাড়লো ছেলেটা ! বারান্দার টেবিলে রাখা আছে । চেচিয়ে জানালেন মা ।

আজ আমি ইশিকা কে আমার মনের কথা জানাবো । আচ্ছা ! কি ভাবে বললে ভাল হয় ? শুধু ভাল না একেবারে ইউনিক হতে হবে । ভাবতে ভাবতে বারান্দার দিকে এগোই । আরে এত্তো সুন্দর প্রজাপতি । এতোটা সুন্দর আমি জীবনেও দেখিনি । প্রজাপতিটা আমি খপ করেই ধরে ফেললাম । মাআআ আমাকে একটা কাঁচের জার দিতে পারো ?

এই নে ধর । আজ কলেজ যাবি না ?

এইতো মা যাচ্ছি ।

জার দিয়ে কি করবি?

লাগবে । বলেই আমার রুমে ছুট লাগালাম । প্রজাপতিটাকে গ্লাসে ঢুকিয়ে রেখেছিলাম । জারে ঢুকালাম । আজ আমি ইশিকাকে এটা গিফট করবো । ও খুশি হবে নিশ্চয় ।

**

ইশিকা এটা তোমার জন্য ।

ওমা । রূপক এটাতো খুব সুন্দর । কোথায় পেলে ?

এইতো । তোমাকে একটা কথা বলি ? আমি তোমাকে ... তোমাকে ভাল...

থামো ! একটা প্রজাপতি ধরিয়ে দিয়ে ভালবাসা ! এভাবে কেউ বলে নাকি । ধ্যাত্‍ রাখো তোমার গিফট । গটমট করে হেটে চলে গেলো ইশিকা । সব এই অপয়া প্রজাপতির জন্যে । জার থেকে বেরে করে হাতের মুঠোয় পিষে ফেললাম পোকাটাকে । ধুর !

**

তারপর কি হলো ?

চাঁদের পরী নেফ্রোদিতি এভাবেই জীবন হারালো । রূপককে দেখেই ভালোবেসেছিল ও ।কখনো প্রজাপতি কখনো পাখি হয়ে ওর বারান্দায় থাকতো । ঘরকুনো রূপকের কাছাকাছি । আর বলতো ভালবাসি । রূপক যখন ওকে হাতের মুঠোয় নিলো তখনো ও বলছিলো ভালবাসি..ভালবাসি ।

Share